তারিখ ই শেরশাহী’ অবলম্বনে  ‘শের শাহ’

দোর্দণ্ড প্রতাপশালী মোগল সাম্রাজ্যের ঠিক শুরুতেই একটা ছন্দপতন। পরাক্রমশালী সাম্রাজ্য বলতে গেলে হঠাৎ একটু হোঁচট খায়, পা পিছলে পড়ে একজন কুশলী আফগান যোদ্ধার কাছে। তিনিই শেরশাহ (১৫৪০-১৫৪৫)। পিতৃপ্রদত্ত নামে ফরিদ কিংবা তারপর শেরখান যে নামেই ডাকা হোক না কেনো তিনি ভারতবর্ষের সবচেয়ে সফল সম্রাটদের একজন, পাশাপাশি শূর বংশের প্রতিষ্ঠাতা। দিল্লি কিংবা আগ্রা থেকে সেই বিহারের সাসারাম কতটা দূর। সেখানকার জায়গিরদার হাসান খান শূরের ঔরষে তাঁর জন্ম ১৪৭২ সালের দিকে। বাহলুল লোদির রাজত্বকালেই জন্ম হয়েছিল শের শাহের। প্রথমে তাঁর নাম রাখা হয় ফরিদ খান। শৈশব থেকে স্বাধীনচেতা ফরিদের আর দশজনের মতো…

Read More

একুশ শতকে সম্পদের বৈশ্বিক অসাম্য

সম্পদগত অসাম্যের ডিনামিকস বিশ্লেষণ করলে জাতীয় অবস্থান থেকে তা নেহাত ক্ষুদ্রই মনে হতে পারে। ব্রিটেন ও ফ্রান্সের বিভিন্ন ব্যক্তির বিদেশে থাকা সম্পদ নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে। তবে বৈশ্বিক সম্পদের অসাম্য বৃদ্ধিতে তার ভূমিকা কতটুকু, এটা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই গেছে। তবে এক্ষেত্রে আরো কিছু বিষয় স্পষ্ট করা দরকার, কারণ সম্পদের বৈশ্বিক অসাম্য ভবিষ্যতে বিশ্বশান্তির জন্যও হুমকি হয়ে দেখা দিতে পারে। নিশ্চিত হওয়ার জন্য ১৯-২০ শতকের প্রারম্ভে ব্রিটেন ও ফ্রান্সের মালিকানাধীন বিদেশী প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমের কথা উল্লেখ করা যেতে পারে। তবে এর সঙ্গে আরো কিছু বিষয় গুরুত্বের সঙ্গে বলা প্রয়োজন। কারণ বৈশ্বিক পর্যায়ে…

Read More

উদ্যোক্তারা কেন অর্থনীতির জন্য গুরুত্ববহ

বেশির ভাগ ক্ষেত্রে উদ্যোক্তাদের মনে করা হয়, জাতির সম্পদ। তাই তাদের যতটা সম্ভব উৎসাহিত, প্রণোদিত ও পুরস্কৃত করার কথা বলা হয়। আমরা যেভাবে বেঁচে আছি কিংবা যে ধরনের কাজ করি, তা বদলে দিতে পারেন কেবল উদ্যোক্তারাই। যদি তারা সফল হন, তবে আমাদের জীবনযাত্রার মান উন্নত হতে পারে। সহজ করে বলতে গেলে, যদিও তারা নিজের মুনাফা অর্জনের প্রয়োজনেই কাজ করেন, কিন্তু তারা অনেক মানুষের কাজের ক্ষেত্র তৈরি করেন; যা উন্নত সমাজ প্রতিষ্ঠার ভিত্তি তৈরি করে। অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে উদ্যোক্তারা কী ধরনের ভূমিকা রাখেন, তার বিশ্লেষণে গুরুত্বপূর্ণ ছয়টি বিষয় আজকের নিবন্ধে আলোচনা…

Read More

বঙ্গবন্ধু ও হেনরি কিসিঞ্জারের বাক্যালাপ

বিষয়: বাংলাদেশের তত্কালীন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জারের বাক্যালাপ। স্থান: প্রধানমন্ত্রী সচিবালয়, ঢাকা। তারিখ: ৩০ অক্টোবর ১৯৭৪। সময়: বিকাল ৫টা ৩০ মিনিট। অংশগ্রহণকারী:বাংলাদেশ ১. তত্কালীন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ২. পররাষ্ট্রমন্ত্রী কামাল হোসেন। ৩. পররাষ্ট্র সচিব ফখরুদ্দিন আহমেদ। ৪. প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব রুহুল কুদ্দুস। ৫. প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের অর্থ সচিব ড. মো. আবদুস সাত্তার। ৬. পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা আবদুল বারী। যুক্তরাষ্ট্র ১. পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার। ২. রাষ্ট্রদূত বোস্টার। ৩. অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি আথারটন ৪. জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের (এনএসসি) রবার্ট ওকলে। ৫. রাষ্ট্রদূত বরার্ট অ্যান্ডারসন। ৬.…

Read More

দ্য রিয়েল বিজনেস অব বিজনেস

যখন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ইঁদুর দৌড়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্ত হয়েছেন, তখন থেকেই নৈতিকতার স্খলন, বৈশ্বিক বাণিজ্য বিস্তারের উচ্চাভিলাষ আর এমনই কিছু বিষয় অনেকটা টাইম বোমার মতো সেট হয়ে ছিল। আর সেই বোমাটার বলা যায় বিস্ফোরণ ঘটেছে গত ২০ জানুয়ারি। অনেক উদার গণতান্ত্রিক দেশ রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে যেখানে একনায়কতান্ত্রিক আমেজ প্রত্যক্ষ করেছে, সেখানে স্বজনপ্রীতির পাশাপাশি বাক স্বাধীনতাকেও সীমাবদ্ধ করে তোলা হয়েছিল। প্রচার মাধ্যমের নিজের মতো করে কাজ করার সুযোগও রাখা হয়নি অনেক ক্ষেত্রে। ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠীস্বার্থে বৈষম্যমূলক নীতি গ্রহণ করতে দেখা গেছে। যুক্তরাষ্ট্র এ ফাঁদ থেকে মুক্ত থেকে স্বাধীনভাবে কাজ…

Read More

ট্রাম্পের নয়া অরাজকতা

শেষ পর্যন্ত এই ছিল কপালে! ২৭ বছর পার হয়ে গেছে সেই বার্লিন প্রাচীরের ভাঙা কিংবা ইউরোপের সমাজতন্ত্রের পতন ঘটার। আর এমন সময় এসে লিবারেল ইন্টারন্যাশনাল অর্ডার অনেক বড় একটা ধাক্কা খেয়ে বসল ডোনাল্ড ট্রাম্পের যুক্তরাষ্ট্রের  প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার মধ্য দিয়ে। মনে করা হচ্ছে, একটি উদারনৈতিক বিশ্ব ব্যবস্থা তৈরিতে পূর্বসূরিদের যে চেষ্টা, তা এক রকম মাঠে মারা গেছে এ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে। ট্রাম্পের ‘আমেরিকা ফার্স্ট’ ও ‘অ্যান্টি-গ্লোবালিস্ট’ নীতি বিশ্ব ব্যবস্থায় বড় রকমের হুমকি সৃষ্টি করবে। যেখানে ‘ক্ল্যাশ অব সিভিলাইজেশন’ আরো প্রকট হবে। বিঘ্ন ঘটবে মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি আলোচনায়। ইউরোপ ও পূর্ব এশিয়ায়…

Read More

শিশু নিপীড়ন, অনর্থক লুকোচুরি আর নেতৃত্বের কথকতা

অনেক ক্ষেত্রে নিউজ ইভেন্টকেও কোম্পানি বোর্ডের প্রায় সবার অন্তর্দৃষ্টি বাড়িয়ে দেয়ার অনুঘটক বলে ধরা যেতে পারে। যেমন— সম্প্রতি ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল কমিটির কম্পিউটার হ্যাকিংয়ে রাশিয়া সরকারের সংশ্লিষ্টতা প্রকাশ হওয়ার পর থেকে অনেক প্রশ্ন ঘুরে-ফিরে আসছে। এটি ঘটেছে কোরিয়া সরকারের সনি পিকচারের সিস্টেম হ্যাক করার ঠিক বছর দুয়েকের মাথায়। এ ঘটনা বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশের সাইবার নিরাপত্তা-সংশ্লিষ্টদের নড়েচড়ে বসতে বাধ্য করেছে। অনেক ক্ষেত্রে অনৈতিক শ্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট তথ্য বের হয়ে আসছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যেতে পারে চীনের অ্যাপল সাপ্লায়ারদের কথা, যারা নানা উল্টা-সিধা পদ্ধতিতে বিভিন্ন কোম্পানিকে তাদের সাপ্লাই চেইনের মধ্যে আসতে বাধ্য…

Read More

অর্থনীতিবিদ বনাম অর্থনীতি

সত্যি বলতে কি— পুরো বিশ্বের অর্থনীতির হালচাল এখন কেমন, সেটি ঠিকমতো কারোরই তেমন জানা নেই। ২০০৮ সালের দিকে অর্থনীতিতে যে ছন্দপতন হয়েছিল, তার থেকে উত্তরণের প্রক্রিয়াও অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে অনেক শ্লথ। এক্ষেত্রে অর্থনীতি কি পূর্বতন অবস্থায় ফিরে যাবে, নাকি সেটা ‘সেক্যুলার স্ট্যাগনেশনের’ প্যাঁচে আটকা পড়বে— এ প্রশ্ন বারবার ঘুরেফিরে আসছে। এদিকে বিশ্বায়ন প্রক্রিয়ার প্রভাবটা তার ওপর কেমন? আর বিশ্বায়ন প্রক্রিয়া এক্ষেত্রে কার্যকর নাকি স্তিমিত হয়ে পড়ছে— প্রশ্ন উঠেছে সেটি নিয়েও। নীতিনির্ধারকরা আসলে এখনো বুঝে উঠতে পারছেন না আসলে কী করতে হবে। তারা স্বাভাবিক কিংবা অবাস্তব নানা বিষয়ের প্রতি গুরুত্বারোপ করতে গিয়ে ঝামেলা…

Read More

ডেমোক্র্যাটরা এখন কী করবে?

মঙ্গলবারের নির্বাচনে লাখ লাখ আমেরিকান তাদের রায় দিয়ে একটি রাজনৈতিক ব্যবস্থার ওপর নিজেদের অনাস্থা স্পষ্ট করেছেন, যারা তাদের চেয়ে ধনিক ও করপোরেটদের স্বার্থ বড় করে দেখেছেন। আমি হিলারি ক্লিনটনকে সমর্থন দিয়েছিলাম, তার পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণাও চালিয়েছি। বিশ্বাস করতাম, তিনি খুব সম্ভবত এবারের নির্বাচনে যোগ্য প্রার্থী হবেন। কিন্তু ডোনাল্ড জে. ট্রাম্প এখন হোয়াইট হাউজে পা রাখতে যাচ্ছেন, যেখানে তার অবস্থান বেশ স্পষ্ট ছিল। তিনি বাস্তব ক্ষোভকে কাজে লাগাতে পেরেছেন, যেটা ধরতে ব্যর্থ হয়েছেন ট্র্যাডিশনাল ডেমোক্র্যাটরা। এ বিজয়ে মনঃক্ষুণ্ন হলেও হতবাক হইনি। আমি এটা নিয়ে কোনো কষ্টও পাইনি যে কয়েক মিলিয়ন মানুষ,…

Read More

অবহেলার মুখে অর্থনীতি, অবহেলিত অর্থনীতিবিদ

ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের চিফ ইকোনমিস্ট অ্যান্ডি হ্যালডেন গেল মাসেই বেশ তোপের মুখে পড়েছিলেন। অভিযোগটা হচ্ছে, তিনি নাকি ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সাম্প্রতিক ফোরকাস্ট মডেল নিয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি। এ নিয়ে অর্থনীতিবিদ থেকে শুরু করে আরো অনেকের আশঙ্কা ছিল। তারা মনে করেছিলেন, গত জুনে ব্রেক্সিটের পর থেকে ব্রিটেনের অর্থনীতিতে একটা পরিবর্তন আসবে। এ পরিবর্তন অনুষঙ্গে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে না পারলে একটা ছন্দপতন আসন্নই ছিল বলা যায়। কারো মতে, ব্রিটেনের জনগণ ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার যে মূর্খ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তার বলি হয়েছে তাদের অর্থনীতি। ধীরে ধীরে তাদের আর্থিক ব্যবস্থায় যে অবনমন…

Read More