নিবেদিতপ্রাণ জীবনানন্দ গবেষকের জন্মদিনে…

ফয়জুল লতিফ চৌধুরী

শ্রদ্ধেয় অধ্যাপক এ কে এম শাহনাওয়াজ স্যারের গবেষণা সহকারী হিসেবে কাজ করার সুবাদে সৌভাগ্যবশত ইতিহাস ঐতিহ্যের পাশাপাশি অনেক ‍গুরুত্বপূর্ণ সেমিনার ও সিম্পোজিয়ােমে অংশগ্রহণের সুযোগ হয়েছে। এমনি একটা সেমিনার প্রথমবারের মতো সামনা সামনি সাক্ষাত হয় বাংলাদেশে অন্যতম প্রধান জীবনানন্দ গবেষক ফয়জুল লতিফ চৌধুরীর সঙ্গে। আজ ৩ জুন, ১৯৫৯ সালের এ দিনে তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন বাংলাদেশের অন্যতম অর্থনীতিবিদ ও সাহিত্যিক ফয়জুল লতিফ চৌধুরীর সঙ্গে আমাদের সংযুক্তি বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর দিয়ে। তিনি ৬ আগস্ট ২০১৪ থেকে ১২ জুন ২০১৮ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করেছেন। বাংলাদেশের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সংরক্ষণ ও প্রদর্শন সম্পর্কিত বেশ কিছু প্রয়োজনীয় সংস্কার ও উদ্যোগ তাঁর সময় গৃহীত হয়েছিল। তিনি ঐতিহ্য নিদর্শন চোরাচালান বন্ধে করণীয় সম্পর্কেও উপযুক্ত দিক নির্দেশনা দিতে চেষ্টা করেছেন এ সময়টাতে।

রূপসী বাংলার কবি জীবনানন্দ দাশের উপর গবেষণায় সর্বজনবিদিত হলেও ফয়জুল লতিফ চৌধুরী বাংলা সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় কাজ করেছেন। তিনি অন্য সব কাজের থেকে সাহিত্য নিয়ে কাজ করতে অনেক স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। হয়তো তাই  জীবনানন্দ দাশের কবিতা ও অন্যান্য রচনা নিয়ে প্রায় তিন দশক ধরে গবেষণা করে চলেছেন। জীবনানন্দ দাশের কবিতার ইংরেজিতে অনুবাদ নিয়ে তিনি অনেক অনেক কাজ করেছেন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ের পাঠকের কাছে জীবনানন্দ দাশকে পরিচিত করার ব্যাপারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। জীবনানন্দ দাশের নিজ হাতে লেখা পাণ্ডুলিপির ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন কাব্যগ্রন্থের সঠিক পাঠ নিরূপণ করেছেন। বিশেষ করে রূপসী বাংলা কাব্যগ্রন্থের বর্জিত অংশ পুনরূদ্ধার করেছেন তিনিই। পাশাপাশি পূর্বতন সম্পাদক কর্তৃক সংযোজিত শব্দাবলী বর্জন করে বিশুদ্ধ পাঠ তৈরীর কৃতিত্বও তাঁর।

প্রকাশনা সংস্থা দিব্য প্রকাশ থেকে তাঁর প্রকাশিত পাঁচটি বইয়ের পাশাপাশি প্রতীক প্রকাশনা সংস্থা থেকে বের হওয়া দুটি তাঁর গবেষকসত্তার সঙ্গে পরিচিত হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিল আমার। এই বইগুলোর মধ্যে ছিল শিল্প-সাহিত্যে নগ্নতা, যৌনতা ও অশ্লীলতা, জীবনানন্দ দাশের ‘আট বছর আগের একদিন’, ন্যাডিন গর্ডিমারের গল্প, অরূন্ধতী রায়ের ‘অভিলাষ টকিজ এবং প্রসঙ্গ জীবনানন্দ তিনি প্রকাশ করেছিলেন দিব্য প্রকাশ থেকে। এর বাইরে আমার পড়া বইয়ের তালিকায় ঠাঁই পায় জীবনানন্দ দাশের ‘মহাপৃথিবী এবং জীবনানন্দ দাশের ‘বেলা অবেলা কালবেলা’যা প্রকাশ করেছে প্রতীক প্রকাশনা সংস্থা। অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত জীবনানন্দ দাশ-এর ’মৃত্যুর আগে শীর্ষক বইটি পড়ার জন্য কেনা হলেও পাবলিক বাসের সিটে ফেলে নেমে পড়েছিলাম। পরে আর সেটি কোথাও দেখিনি, পড়াও হয়নি। অন্যদিকে জীবনানন্দ দাশের প্রবন্ধ সমগ্র শীর্ষক গ্রন্থটি কোন মহামানব আমার কাছ থেকে পড়ার কথা বলে নিয়ে মেরে দিয়েছেন যা আর পরে পড়ার সুযোগ পাইনি আমি নিজেই।

জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা প্রিয় লেখক। অনেক অনেক সুন্দর আর কর্মমুখর হোক আপনার জীবনের অনাগত দিন। আপনার কলমে বিশ্ব চিনুক অন্য এক জীবনানন্দকে। শুভকামনা নিরন্তর। আগ্রহী পাঠক আরও জানতে পারবেন নিচের ভিডিও থেকে।

(Visited 97 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *